ফটিকছড়িতে সংবাদ সম্মেলন

উপজেলা আওয়ামী লীগকে শিবির ও ইউএনডিমুক্ত করতে হবে

নিজস্ব প্রতিনিধি, ফটিকছড়ি
fatickchari(a.lig-misil)-pic-20-4-17

ফটিকছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটিতে অগ্রহণযোগ্য, প্রবাসী, মাদকাসক্ত, শিবির ও এনডিপি’র রাহুগ্রাস থেকে বাঁচাতে উপজেলা আওয়ামী লীগ বাঁচাও আওয়াজ তুলে ফটিকছড়ি আওয়ামী পরিবার বৃহস্পতিবার উপজেলার নাজিরহাট পৌরসভার জারিয়া কমিউনিটি সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।
প্রবীণ আওয়ামীগ নেতা এ এম ফসিউদ্দৌল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপসি’ত ছিলেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এম তৌহিদুল আলম বাবু, শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক ফখরুল আনোয়ার, এসএম সোলায়মান, এইচএম আবু তৈয়ব, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেবুননাহার মুক্তাসহ উত্তর জেলা ও উপজেলা এবং ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বক্তপুর ইউপি চেয়ারম্যান এম সোলায়মান। লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, প্রস্তাবিত কমিটি গঠনে বিগত কমিটির সভাপতি-সম্পাদকসহ জেলা নেতৃবৃন্দের মতামত নেয়া হয়নি। গঠিত কমিটিতে দলের দুঃসময়ের পরীক্ষিত ও ত্যাগীনেতাদের পদবঞ্চিত করে নিজেদের ব্যবসায়ীক অংশীদার, ভাই-আত্নীয়স্বজন, দলে অনুপ্রবেশকারী ‘দুধের মাছি’দের জায়গা করে দেয়া হয়েছে। নবীন-প্রবীণের নীতিমালা রক্ষা করা হয়নি। ব্যক্তিগত সম্পর্ক, অনৈতিক সুবিধা, অবৈধ আর্থিক লেনদেন ইত্যাদি প্রাধান্য পেয়েছে। উপজেলা কমিটি গঠনে ইউপি’র সভাপতি-সম্পাদকের মতামত নেয়া হয়নি। অপ্রয়োজনীয় ও অযোগ্য ব্যক্তির অনুপ্রবেশ ঘটেছে। জুনিয়রদের নিয়ে কমিটি করা হয়ছে। ফলে রাজনীতির অঙ্গনে এই কমিটির মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এতে ছাত্রলীগ নেতা বাবর-মুজিব হত্যাকারী, এনডিপি’র ক্যাডার, যুদ্ধাপরাধী সালাহউদ্দিন কাদেরের অনুসারীকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন,এ কমিটিতে এমন কতেক লোকজনকে রাখা হয়েছে যাদের প্রাথমিক সদস্য পদ ও নেই। বক্তব্যে আরো বলা হয়, এটি একটি পকেট কমিটি। এতে ফটিকছড়ি আওয়ামী লীগের বুহত্তর অংশের কোনো সমর্থন ও আস’ার প্রতিফলন নেই। আমরা এই পকেট কমিটিকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছি। দলের ঐক্য ও শৃংখলা অটুট রাখতে এ পকেট কমিটি ভেঙে জেলা-উপজেলার উর্দ্ধতন নেতাদের একত্রিত ও সমন্বিত করে এবং সব পক্ষকে আস’ায় এনে কমিটি ঢেলে সাজাতে হবে। লিখিত বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে উপজেলা চেয়ারম্যান এম তৌহিদুল আলম বাবু বিভিন্নজনের নাম উল্লেখ করে বলেন, ফটিকছড়ির ভোটার নয়, কুমিল্লার ভোটারকে, ইউপি কমিটিতে পরাজিত, প্রবাসী, এনডিপি ক্যাডার ও একটি চা-বাগানের ভূমিদস্যুকে প্রস্তাবিত কমিটিতে রাখা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, পৌরসভা ও ইউপি আওয়ামী লীগ কাউন্সিলে যারা সভাপতি-সাধারণ সম্পদক নির্বাচিত হয়েছেন তাদের প্রতি আমাদের কোনো ক্ষোভ নেই।
উল্লেখ্য, পূর্বঘোষিত এ সংবাদ সম্মেলনের স’ানে একই সময়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে সমাবেশের জন্য গত বুধবার মাইকিং করলে উত্তেজনার সৃস্টি হয়। কিন’ তারা সমাবেশ বা কোনো সভা করেননি। এসময় বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন থাকাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সংবাদ সম্মেলন শেষ হয়।