ইয়েমেনের সাবেক প্রেসিডেন্ট সালেহ নিহত : আল আরাবিয়া

সুপ্রভাত ডেস্ক

সাবেক প্রেসিডেন্ট আলি আব্দুল্লাহ সালেহ নিহত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছে তার দল আল আরাবিয়া। খবর বাংলা ট্রিবিউন।
সোমবার হুথি নিয়ন্ত্রিত একটি রেডিও স্টেশন থেকে আলি আব্দুল্লাহ সালেহর মৃত্যুর খবর প্রচার করা হয়।
তবে সালেহর রাজনৈতিক দল জেনারেল পিপলস কংগ্রেস (জিপিসি) হুথিদের এ দাবি অস্বীকার করেছে।
সোমবার ইয়েমেনের রাজধানী সানায় নিজ বাসভবনে বিস্ফোরণে আলি আব্দুল্লাহ সালেহ নিহত হয়েছেন বলে দাবি করে হুথি মিলিশিয়ারা।
তবে জিপিসির মুখপাত্র আদেল আল সিয়াঘি বলেন, সালেহর মৃত্যুর খবর সঠিক নয়। তিনি হুথি সমর্থিত সংবাদ মাধ্যমগুলোকে মিথ্যে খবর পরিবেশনের দায়ে অভিযুক্ত করেন। তবে আলি আব্দুল্লাহ সালেহ এখন কোথায় সে ব্যাপারে কিছু বলেননি তিনি।
নিরপেক্ষ সূত্রের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সালেহর বাসভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় তার সালেহর নিরাপত্তা প্রধান হোসেইন আল হামিদি মারা গেছেন। তবে এ ঘটনারও সত্যতা নিশ্চিত করতে পারেনি তারা।
এদিকে ইরান সমর্থিত শিয়া হুথি মিলিশিয়ারা দাবি করেছে, সালেহ সমর্থিত যোদ্ধাদের হটিয়ে দিয়ে রাজধানী সানার অধিকাংশ এলাকার দখল নিয়েছে হুথি মিলিশিয়ারা। পাশাপাশি সালেহর বাসভবন সংলগ্ন আল মেসবাহি আবাসিক এলাকারও দখল নিয়েছে হুথি মিলিশিয়া বাহিনী। এদিকে ইয়েমেনের সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আব্দুল্লাহ সালেহর দেওয়া আলোচনা প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে সৌদি আরব নেতৃত্বাধীন জোট। খবর বিডিনিউজ। জোটের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নেতৃত্ব গ্রহণ করার এবং জনগণের পক্ষ নিয়ে ইরানের অনুগত জঙ্গিদের হাত থেকে ইয়েমেনকে মুক্ত করতে’ এ সিদ্ধান্ত। ২০১৪ সালের ২১ সেপ্টেম্বর দেশটির শিয়া হুতি বিদ্রোহীরা রাজধানী সানা দখল করে এবং প্রেসিডেন্ট আব্দ-রাব্বু মনসুর হাদিকে গৃহবন্দি করে। পরে হাদি রাজধানী থেকে পালিয়ে বন্দর নগরী এডেনে আশ্রয় নেন এবং সশস্ত্র অনুসারীদের সমর্থন নিয়ে রাজধানী ফেরার চেষ্টা করেন। আব্দুল্লাহ সালেহ ও তার অনুগত বাহিনী হুতি বিদ্রোহীদের সমর্থন দেয়, ইরান তাদের পক্ষ নেয়।
অন্য দিকে সৌদি আরব নেতৃত্বাধীন জোট হাদি সরকারের পক্ষে ইয়েমেনে যুদ্ধে অংশ নিচ্ছে।
সম্প্রতি টেলিভিশনে এক ভাষণে সালেহ বলেন, যদি সৌদি জোট অবরোধ তুলে নেয় এবং আক্রমন করা বন্ধ করে তবে তিনি ‘আলোচনায় বসতে’ প্রস্তুত আছেন। ‘আমি আমার প্রতিবেশী দেশগুলোর ভাইদের এবং সৌদি জোটকে তাদের আক্রমণ বন্ধ করার, অবরোধ তুলে নেওয়ার, বিমানবন্দর খুলে দিয়ে খাদ্য সাহায্য প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার এবং আহতদের প্রাণ বাঁচানোর আহ্বান জানাচ্ছি। আমাদের প্রতিবেশীদের সদাচারের দ্বারা আমরা একটি নতুন যুগে প্রবেশ করতে পারি।আমরা ইতিবাচক পথে একটি চুক্তিতে উপনীত হতে পারি এবং যা হবে তা ইয়েমেনের জন্য যথেষ্ট।’
প্রেসিডেন্ট হাদিও আলোচনার এ প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সালেহর সঙ্গে কাজ করতে প্রস্তুত আছেন তিনি। এদিকে, সালেহ’র ওই ঘোষণার পর হুতি বিদ্রোহীরা তাকে বিশ্বাসঘাতক বলেছে। সালেহ সৌদি জোটের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে অভিযোগ হুতি বিদ্রোহীদের নেতা আব্দুল মালিক আল-হুতির বলেন, ‘সালেহর আচরণ সন্দেহজনক ছিল, কিন্তু এখন তার মুখোশ খুলে গেছে। এটা করবেন না। এটা বিশ্বাসঘাতকের মত আচরণ। তাদের জন্য লজ্জা হচ্ছে। এটা লজ্জাজনক।’