কনফারেন্সে আল্লামা সাবির শাহ

আ’লা হযরত সুন্নি ঐক্যের প্রতীক

বিজ্ঞপ্তি

রাহনুমায়ে শরিয়ত ও তরিকত হযরতুল আল্লামা পীর সৈয়্যদ মুহাম্মদ সাবির শাহ্ (মুজিআ.) বলেন, ইসলামের মূলস্রোত সুন্নি দর্শনকে নিয়েই আ’লা হযরতের (র.) জ্ঞান গবেষণার জগৎ বিনির্মিত। হুব্বে রাসূল তথা নবীপ্রেমই ছিল তাঁর জীবন সাধনার মূল উপজীব্য। তিনি সুন্নি ঐক্যের প্রতীক, সুন্নিয়াতভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্নদ্রষ্টা। মুসলিম উম্মাহর এ ক্রান্তিকালে সংকট উত্তরণে তাঁর জীবন-দর্শনের যথার্থ অনুসরণ জাতিকে সঠিক পথের দিশা দেবে।
গতকাল সোমবার বিকালে জিইসি কনভেনশন হলে হিজরি চতুর্দশ শতাব্দির মহান সংস্কারক আ’লা হযরত ইমাম আহমদ রেযার (র.) ওফাত শতবার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষে আ’লা হযরত কনফারেন্স প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
আল্লামা সাবির শাহ আরও বলেন, ইতিহাসের এক ক্রান্তিকালে ইসলামবিদ্বেষী ও বিকৃতকারীদের বহুমুখী ষড়যন্ত্রে মুসলিম মিল্লাত যখন বিপর্যস্ত তখন ১৮৫৬ সালে আ’লা হযরত (র.)’র আবির্ভাব ছিলো সময়ের দাবী। তাঁর আগমনে সত্যান্বেষী মুসলমানরা পেয়েছে মুক্তির দিকদর্শন । তাঁর অমূল্য গ্রন’াবলী ইসলামী জ্ঞান ভাণ্ডারকে করেছে সমৃদ্ধ। সুন্নিয়তের প্রচার-প্রসার ও শান্তিপূর্ণ সমাজ প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনে তাঁর জীবন দর্শনের ব্যাপক চর্চা ও গবেষণা বড় বেশি প্রয়োজন। কুরআন, হাদিস, তাফসীর, ফিকহশাস্ত্র, ধর্মতত্ব, সূফীতত্ব, ভাষাতত্ব, রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতিসহ জ্ঞান বিজ্ঞানের প্রতিটি শাখায় তাঁর সদর্প বিচরণ, হানাফী মাযহাবের উপর লিখিত তাঁর ত্রিশ খণ্ডের পঁচিশ সহস্রাধিক পৃষ্ঠা সম্বলিত বিশাল ফতওয়া গ্রন’ ‘ফাতওয়ায়ে রেজভীয়্যাহ’ ইসলামের শ্রেষ্ঠত্বের এক প্রামাণ্য দলিল ।
ওফাত শতবার্ষিকী উদযাপন পরিষদের প্রধান পৃষ্ঠাপোষক ও পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সূফী মুহাম্মদ মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কনফারেন্সে প্রধান আলোচক আল্লামা সৈয়দ মুহাম্মদ আহমদ শাহ (মু.জি.আ.) বলেন বিশ্বব্যাপী ইসলামের সঠিক রূপরেখা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের প্রচার প্রসারে যুগেযুগে যেসব মহান মনীষী বিশ্বের সুন্নী জনতার কাছে চিরস্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে আছেন তাঁদের মধ্যে ইমাম আহমদ রেযা (র.) অন্যতম। ইমাম আহমদ (রা.) ইংরেজ শাসন শোষণের দুর্যোগপূর্ণ মুহূর্তে এতদাঞ্চলের মুসলমানদের ঈমান, আক্বীদা, রাজনীতি, অর্থনীতি প্রভৃতি অঙ্গনে যে বিপ্লবী ভূমিকা পালন করেছেন তা আজ এক ঐতিহাসিক সত্যে পরিণত হতে চলছে।
এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন আল্লামা হাফিজ সৈয়্যদ মুহাম্মদ নুরানী মিয়া আল আশরাফী আল জিলানী, ক্বারী শায়খ আহমদ নায়না আল আযহারী, শায়খুল হাদিস আল্লামা মুহাম্মদ রাহাত খান কাদেরী বেরলভী, ফরহান নকী সিদ্দিকী, আনজুমান ট্রাস্ট’র সিনিয়র সহ সভাপতি আলহাজ মোহাম্মদ মহসিন, সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, আনজুমান ট্রাস্ট’র জয়েন্ট সেক্রেটারি আলহাজ্ব মুহাম্মদ সিরাজুল হক, শায়খুল হাদিস মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী, জামেয়ার চেয়ারম্যান অধ্যাপক দিদারুল ইসলাম, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার অধ্যক্ষ মুফতি সৈয়্যদ মুহাম্মদ অসিয়র রহমান, অধ্যক্ষ খায়রুল বশর হক্কানী।
আলোচনায় অংশ নেন- আল্লামা এম এ মান্নান, আল্লামা কাযী মুহাম্মদ মঈনুদ্দিন আশরাফী, জমিয়তুল ফালাহ্’র খতিব ক্বারী আবু তালেব মুহাম্মদ আলাউদ্দিন, অ্যাডভোকেট মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার, ড. মুহাম্মদ জাফরউল্লাহ, উপাধাক্ষ আল্লামা আবুল কাশেম ফজলুল হক, সাংবাদিক কাশেম শাহ্, গাউসিয়া কমিটির চেয়ারম্যান আলহাজ পেয়ার মুহাম্মদ, ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক, অধ্যক্ষ তৈয়্যব আলী, মাওলানা আবুল আসাদ জুবায়ের, মাওলানা জালাল উদ্দিন আহাজারি, অধ্যক্ষ মুহাম্মদ আবু তালেব বেলাল, আলহাজ নাঈমুল ইসলাম পুতুল, পীরজাদা গোলামুর রহমান আশরাফ শাহ,্ব মুফতি এ এস এম জালাল উদ্দিন ফারুকী, বদিউল আলম কমিশনার।
শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, আবু নাছের মুহাম্মদ তৈয়ব আলী, অধ্যক্ষ ঈসমাইল নোমানী, জহির উদ্দিন তুহিন, মাওলানা সৈয়্যদ মুহাম্মদ ইউনুস রিজভী, মাওলানা আবুল হাসানাত আল কাদেরী, মাওলানা নিজাম উদ্দিন, মাওলানা আরিফুর রহমান, মাওলানা ছগীর আহমদ আল কাদেরী, মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুচ তৈয়বী, ড. মাওলানা জিয়াউল হক ও সৈয়্যদ আবু আজম ।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন আ’লা হযরত ফাউন্ডেশন’র সভাপতি অধ্যক্ষ বদিউল আলম রেজভী ও অর্থ সম্পাদক মুহাম্মদ এরশাদ খতিবী। পরিশেষে দেশ-জাতি ও মুসলিম উম্মাহর সুখ শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনায় দু’আ- মুনাজাতের মাধ্যমে কনফারেন্স শেষ হয়।