সিফরডি শীর্ষক জাতীয় কর্মশালায় ইউজিসি চেয়ারম্যান

আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সিফরডি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে কমিউনিকেশন ফর ডেভেলপমেন্ট (সিফরডি)- এর ওপর পাঠ্যক্রম প্রণয়ন এবং এ খাতে গবেষণা কার্যক্রমে উৎসাহ প্রদান করার জন্য তিন দিনব্যাপী এক জাতীয় কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ২০ আগস্ট ঢাকার একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং জাতিসংঘ শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) যৌথভাবে আয়োজন করে এ কর্মশালা। কর্মশালা আজ ২১ আগস্ট ইউজিসি অডিটোরিয়ামে শুরু হয় যা ২৩ আগস্ট পর্যন্ত চলবে।
ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মশালাটি উদ্বোধন করেন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইউনিসেফ প্রতিনিধি মি. এডওয়ার্ড বেগবেডার।
ইউনিসেফের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, জাতীয় এ কর্মশালা দেশের উচ্চশিক্ষার উন্নয়নে অনবদ্য ভূমিকা পালন করবে।
বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেও সিফরডি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ, স্যানিটেশন এবং শিশু অধিকার বিষয়গুলোর উপর গুরুত্বারোপ করে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশের এসব সমস্যাগুলি মোকাবেলায় বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি একটি বড় পদক্ষেপ। স্বাগত বক্তব্যে এডওয়ার্ড বেগবেডার বলেন, বাংলাদেশ সিফরডি ব্যবহার করে শিশু এবং তাদের সমপ্রদায়ের অধিকার উন্নয়নে অগ্রগতি অর্জন করেছে। তিনি বলেন, শিশুর অধিকার প্রতিষ্ঠা ও সমাজের অগ্রগতির জন্য সমন্বিত পদ্ধতির প্রয়োজন।
এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ সিফরডি বাস্তবায়নে শিক্ষার্থীদের গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সিফরডি হচ্ছে জনসাধারণ, তাদের বিশ্বাস, মূল্যবোধ এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মূল্যবোধসমূহ বোঝা যা তাদের জীবনকে আকৃষ্ট করে।
ড. রাফায়েল ওবেরগন, চীফ, সিফরডি সেকশন, ইউনিসেফ, নিউইয়র্র্ক হেডকোয়ার্টার, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন।
ইউএসএ ওহাইও ইউনিভার্সিটির প্রফেসর (এ্যামিরেটাস) ড. ডেভিড মোল্ড, ইউনিসেফ বাংলাদেশের চিফ সিফরডি সেকশন মিস নেহা কাপিল বক্তব্য প্রদান করেন। এতে ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. দিল আফরোজা বেগম, ইউজিসি সচিব ড. মো. খালেদ, ১৬ টি পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি এবং ইউনিসেফ ও ইউজিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি