আমিন,পাশা টেনশনমুক্ত

চান্দগাঁও আসনে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন এরশাদ উলস্নাহ সুফিয়ানের কপালে ভাঁজ

নিজস্ব প্রতিবেদক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের দুটি আসনের হেভিওয়েট প্রার্থী গতকাল আপিল শুনানিতে মনোনয়ন ফিরে পেয়েছেন। এরা হলেন চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই) আসনের নুরম্নল আমিন চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনের মোসত্মাফা কামাল পাশা। নির্বাচন কমিশনের বাছাইয়ে বাদ পড়া বিএনপির এই দুই হেভিওয়েট প্রার্থী এখন টেনশনমুক্ত।
চট্টগ্রাম-৮ (চান্দগাঁও-বোয়ালখালী) আসনে বিএনপির বিকল্প প্রার্থী এরশাদ উলস্নাহও আপিল শুনানিতে টিকে গেছেন। মনোনয়ন ফিরে পেয়ে তিনি এ আসনে বিএনপির অপর বিকল্প প্রার্থী আবু সুফিয়ানের সামনে এখন বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছেন। এ আসনে বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান হলেন ধানের শীষের মূল প্রার্থী। তিনিও বাছাইয়ে বাদ পড়েছেন। আজ নির্বাচন কমিশনে তাঁর আপিলের শুনানি হবে।

বাছাইয়ে মোরশেদ খান ও এরশাদ উলস্নাহ বাদ পড়ে যাওয়ার পর এ আসনে আবু সুফিয়ানকে একক প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করছিলেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। কিন’ এখন তাঁর একক মনোনয়নের পথ কঠিন করে দিলেন ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে এ আসনে ধানের শীষ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা এরশাদ উলস্নাহ। তবে আজ যদি আপিলে মোরশেদ খানও টিকে যান তাহলে তিনিই পাবেন ধানের শীষের প্রতীক।
তবে নগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবু সুফিয়ানের বিশ্বাস শেষ পর্যনত্ম তিনিই পাবেন দলের টিকিট। সুপ্রভাতের কাছে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
নগর বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এরশাদ উলস্নাহ সুপ্রভাতকে বলেন, ‘আমার চাচা (মোরশেদ খান) যদি আপিলে মনোনয়ন ফিরে না পান তাহলে ধানের শীষ প্রতীক পাওয়ার ড়্গেত্রে সুফিয়ানের চেয়ে আমার অগ্রাধিকার থাকবে। কারণ এ আসনে আমি ২০০৮ সালে ধানের শীষ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি।’
চট্টগ্রাম-১ (মীরসরাই) আসনে নুরম্নল আমিন চেয়ারম্যান বাছাইয়ে বাদ পড়লে তাঁর বিকল্প দুই প্রার্থী-কামাল উদ্দিন আহমেদ ও মনিরম্নল ইসলাম ইউসুফের মুখে হাসি ফুটেছিল। আপিলে গতকাল নুরম্নল আমিন টিকে যাওয়াতে তাদের কপাল পুড়তে যাচ্ছে।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, মীরসরাই আসনে নুরম্নল আমিন চেয়ারম্যানকেই ধানের শীষের মূল প্রার্থী করা হয়েছে।
আপিলে টিকে টেনশন মুক্ত হওয়ার
থা জানিয়ে তিনি গতকাল সুপ্রভাতকে বলেন, ‘আমার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল আপিলে মনোনয়ন ফিরে পাবো। আশা করছি, দুয়েক দিনের মধ্যে ধানের শীষের প্রতীকও আমি পাবো।’
চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে মোসত্মাফা কামাল পাশা আপিলে মনোনয়ন ফিরে পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত ছিলেন। কিন’ গতকাল শুনানিতে তাঁর ভাগ্য খুলে গেল। এ আসনে তিনিই হলেন ধানের শীষের মূল প্রার্থী।
গতকাল তিনি সুপ্রভাতকে বলেন, ‘আমি এরআগে চার বার নির্বাচন করেছি। একাদশ সংসদ নির্বাচনে পঞ্চমবারের মতো লড়বো।’
মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে বিএনপির আরও তিন হেভিওয়েট চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকু-) আসনে আসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী-বাকলিয়া) আসনে শামসুল আলম এবং চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে সামির কাদের চৌধুরী বাদ পড়েছেন। আজ ও আগামীকাল নির্বাচন কমিশনের আপিল শুনানিতে তাদের ভাগ্য নির্ধারণ হবে।