আপিল শুনানির প্রথম দিন প্রার্থিতা ফিরে পেলেন ৮০ জন

সুপ্রভাত ডেস্ক

রিটার্নিং কর্মকর্তার বাছাইয়ে যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল, তাদের প্রথম ১৬০ জনের আপিল শুনানি করে ৮০ জনের প্রার্থিতা ফিরিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। খবর বিডিনিউজ।
এই সিদ্ধান্তের ফলে আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে তাদের আর কোনো বাধা থাকল না।
বৃহস্পতিবার আপিল শুনানির প্রথম দিন ৭৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্তই বহাল রেখেছে নির্বাচন কমিশন। বাকি চারটি আবেদনের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের রায় স’গিত রাখা হয়েছে। শনিবারের মধ্যে তা নিষ্পত্তি করা হবে।
প্রার্থিতা ফিরে পাওয়া ৮০ জনের মধ্যে অন্তত ৩৫ জন বিএনপির প্রার্থী। রিটার্নিং কর্মকর্তার বাছাইয়ে বিএনপির ৫৫৫ জনের প্রার্থিতা বৈধতা পেয়েছিল। তাদের সঙ্গে আপিলজয়ী ৩৫ জন যোগ হওয়ায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিএপির বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়াল ৫৯০ জনে।
নির্বাচন ভবনের একাদশ তলায় সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত এই শুনানি চলে। ৫৪৩টি আপিল আবেদনের মধ্যে প্রথম দিন ১৬০টি আবেদনের ওপর শুনানি হয়।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এই শুনানিতে বিচারকের আসনে ছিলেন।
ইসির জনসংযোগ পরিচালক যুগ্মসচিব এস এম আসাদুজ্জামান জানান, শুক্রবার আবেদনের ক্রমিক নম্বর অনুসারে ১৬১ থেকে ৩১০ এবং শনিবার ৩১১ থেকে ৫৪৩ পর্যন্ত আপিলের শুনানি হবে।
প্রথম দিনের শুনানিতে যারা প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন, তাদের মধ্যে পটুয়াখালী-৩ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী গোলাম মাওলা রনিও আছেন। সদ্য আওয়ামী লীগ থেকে বিএনপিতে নাম লেখানো রনির মনোনয়নপত্র গত ২ ডিসেম্বর ‘হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকার’ কারণ দেখিয়ে বাতিল করেছিলেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।
২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের টিকেটে সাংসদ নির্বাচিত হওয়া রনির বক্তব্য ছিল, হলফনামায় সই না করাটা ছিল তার ‘সাধারণ ভুল’। এমন ভুলের কারণে অতীতে কখনও কোনো মনোনয়ন বাতিল হয়নি।
বগুড়া-৭ আসনে খালেদা জিয়ার বিকল্প প্রার্থী মোরশেদ মিল্টন এবং ঢাকা-১ আসনে বিএনপির মনোনীত খন্দকার আবু আশফাকও প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের কারণে এ দুটি আসনি বিএনপির প্রার্থীশূন্য হয়ে পড়েছিল।
বৃহস্পতিবারের শুনানি শেষে বিএনপির পার্থীদের অন্যতম আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের বেশ কয়েকজন প্রার্থীর মনোনয়ন ফিরিয়ে দিয়েছে কমিশন। এখন বেগম খালেদা জিয়ার মনোনয়ন ফিরিয়ে দেওয়ার ওপর আমাদের সন’ষ্টি-অসন’ষ্টি নির্ভর করছে।
জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছর এবং জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৭ বছরের দণ্ড নিয়ে গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তার নামে এবার ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছিল। কিন’ দুর্নীতি মামলায় দুই বছরের বেশি সাজা হওয়ার কারণে রিটার্নিং কর্মকর্তারা তা বাতিল করেন।
যারা টিকে গেলেন
পটুয়াখালী-৩: বিএনপির প্রার্থী গোলাম মাওলা রনি। হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।
বগুড়া-৭: বিএনপির প্রার্থী মোরশেদ মিল্টন। ওই আসনে তিনি খালেদা জিয়ার বিকল্প প্রার্থী। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ার কারণ দেখিয়ে তার প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছিল।
ঢাকা-১: বিএনপির খন্দকার আবু আশফাক। চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
ঢাকা-২০: বিএনপির তমিজ উদ্দিন। চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
জামালপুর-৪: ফরিদুল কবির তালুকদার। চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
কিশোরগঞ্জ-২: বিএনপির প্রার্থী আখতারুজ্জামান। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল খেলাপী ঋণের জামিনদার হিসেবে ঋণ খেলাপী হওয়ায়।
ঝিনাইদহ-২: বিএনপির আব্দুল মজিদ। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।
পটুয়াখালী-১: ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. সুমন সন্যামত। আয়কর রিটার্নের কপি না দেওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।
পটুয়াখালী-৩: বিএনপির মোহাম্মদ শাহজাহান। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল ঋণখেলাপের অভিযোগে।
মাদারীপুর-১: জাতীয় পার্টির মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম মিন্টু। অসম্পূর্ণ ফরম জমা দেওয়ায় এবং স্বাক্ষর ঠিকমত না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।
সিলেট-৩: বিএনপির প্রার্থী আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী। মূল হলফনামায় স্বাক্ষর ছিল না।
জয়পুরহাট-১: বিএনপির প্রার্থী মোহাম্মদ ফজলুর রহমান। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
পাবনা-৩ : বিএনপির প্রার্থী মো. হাসাদুল ইসলাম। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
মানিকগঞ্জ-২: উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
সিরাজগঞ্জ-৩: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আয়নুল হক। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল বিল খেলাপি হওয়ায়।
গাজীপুর-২: জাতীয় পার্টির প্রার্থী জয়নাল আবেদীন। হলফনামায় মামলা সংক্রান্ত তথ্য গোপনের কারণ দেখিয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬: জাতীয় পার্টির প্রার্থী জেসমীন নূর বেবী। হলফনামা নোটারি না করায় এবং ২০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প অথবা সমপরিমাণ কোর্ট ফি না দেওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩: জাতীয় পার্টির প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল হেলাল। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল পৌর কর পরিশোধ না করার কারণে।
রংপুর-৪: জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তফা সেলিম। আরপিওর ব্যত্যয় ঘটানোর কারণ দেখিয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।
হবিগঞ্জ-১: বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থী জোবায়ের আহমেদ। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল হলফনামায় সই না থাকায়।
ময়মনসিংহ-২: স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু বকর সিদ্দিক। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগে।
ময়মনসিংহ-৭: বিএনপির প্রার্থী জয়নাল আবেদিন। বাতিলের কারণ জানা যায়নি।
কুড়িগ্রাম-৩: বিএনপির প্রার্থী আব্দুল খালেক। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগে।
কুড়িগ্রাম-৪: গণফোরামের মো. মাহফুজুর রহমান। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগে।
কুড়িগ্রাম-৪: স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনুছ আলী। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল এক শতাংশ ভোটারের সমর্থন না থাকায়।
পঞ্চগড়-২: বিএনপির প্রার্থী ফরহাদ হোসেন আজাদ। হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।