যুবলীগ নেতা ফরিদ হত্যা

আট আসামি কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরের চকবাজার ডিসি রোডে ডিশ ব্যবসা নিয়ে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে নিহত যুবলীগ নেতা ফরিদ হত্যার ঘটনায় আট আসামিকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

গতকাল মহানগর দায়রা জজ আকবর হোসেন মৃধার আদালতে আসামিরা উচ্চ আদালতের জামিন শেষে হাজিরা দিতে গেলে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর এ আদেশ দেন। মামলার নয় আসামির মধ্যে অন্যজন ফয়সাল নামের এক যুবলীগ নেতা। তিনি গতকাল আদালতে হাজিরা দিতে যাননি। ফয়সাল দেওয়ান বাজার দুই নম্বর গলির মো. ইসমাঈল ওরফে লালু মিয়া ওরফে ডিবি লালুর ছেলে নামেও পরিচিত।

অন্য আসামিরা হলেন ১৮ নম্বর পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মুছা, পশ্চিম বাকলিয়া আছিয়ার বাপের বাড়ির মো. ইছার ছেলে মুরাদ, মিয়ার বাপের বাড়ির মাবুদ খলিফার ছেলে মো. মাসুদ, চাঁন মিয়া মুন্সি লেইনের আবু তাহেরের ছেলে তৌহিদুল আলম, চকবাজার ডিসি রোডের মৌসুমি পাড়ার নুরুল আবসারের ছেলে রাসেল, চন্দনপুরা দারুল উলুম মাদ্রাসার এলাকার আবুল বশরের ছেলে মো. ইকবাল হোসেন মিঠু, বাকলিয়া বগারবিল শান্তিনগর এলাকার নবী ও জানে আলম।

নগর পুলিশের প্রসকিউশন শাখার উপ-কমিশনার নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্তী সুপ্রভাতকে বলেন, উচ্চ আদালতের জামিন শেষে আসামিরা দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করেন। আদালত তা নামঞ্জুর তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত ২৭ এপ্রিল চকবাজার থানাধীন চাঁনমিয়া মুন্সী লেইনের কালাম কলোনীর মুখে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এসময় যুবলীগ নেতা ফরিদ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী চকবাজার থানায় বাদি হয়ে নয়জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।