শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিল ‘তিতলি’

আজ ভোরে ভারতীয় উপকূলে আঘাত করবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ আজ ভোরে ভারতের বিশাখাপত্তম ও ভুবনেশ্বরের মধ্যবর্তী উপকূলে আঘাত করার কথা রয়েছে। এর আগে এটি শক্তি সঞ্চয় করে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়ে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১১০ কিলোমিটার গতিতে অগ্রসর হচ্ছে।
এর প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকবে বলে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে চার নম্বর স’ানীয় হুঁশিয়ারি সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।
ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টিপাত হতে পারে জানিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর ঢাকা কেন্দ্রের আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়টি আজ (বৃহস্পতিবার) ভোরে ভারতের বিশাখাপত্তম ও ভুবনেশ্বরের মধ্যবর্তী উপকূলে আঘাত করতে পারে। এর প্রভাবে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।’
বৃষ্টিপাত কখন হতে পারে জানতে চাইলে আবহাওয়া অধিদপ্তর পতেঙ্গা কেন্দ্রের আবহাওয়াবিদ বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেন, আজ দুপুরের পর থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা রয়েছে। তবে বৃষ্টিপাতের মাত্রা বেশি হবে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় এলাকাগুলোতে। চট্টগ্রাম অঞ্চলেও বৃষ্টিপাত হবে। আর এই বৃষ্টিপাত চলবে শুক্রবার পর্যন্ত।
এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ১১ নম্বর বিশেষ বুলেটিনের তথ্য মতে, ঘূর্ণিঝড়টি গতকাল দুপুরে মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস’ান করছিল। ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম থেকে ৯১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার থেকে ৮৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা থেকে ৭৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা থেকে ৭৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস’ান করছিল। এটি আরো ঘনীভূত হয়ে উত্তর উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের ৬৪ কিলোমিটারের কেন্দ্রে বাতাসের একটানা গতিবেগ ৯০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় সমুদ্র বন্দরগুলোতে চার নম্বর স’ানীয় হুঁশিয়ারি সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে চট্টগ্রাম উপকূলীয় এলাকায় গতকাল তেমন বৃষ্টিপাত হয়নি। তবে বাতাসের গতিবেগ কমে গিয়েছিল।
উল্লেখ্য, এপ্রিল-মে এবং সেপ্টেম্বর-অক্টোবর এই চার মাস হলো ঘূর্ণিঝড় প্রবণ মৌসুম। এসময় সাগরে সৃৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড়গুলো শক্তিশালী হয়ে থাকে। সাধারণত গ্রীষ্মের পর বর্ষার আগে এবং বর্ষার পর শীতের আগে সাগরে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হয়ে থাকে। বছরের অন্যান্য সময়ে সাগরে মৌসুমী নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়ে থাকে। তবে মাঝে মাঝে ব্যতিক্রমও ঘটতে দেখা যায়।