আজ টুঙ্গিপাড়ায় চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবান

আয়োজনের হাল ধরলেন মহিউদ্দিন চৌধুরীর দুই ছেলে

নিজস্ব প্রতিবেদক গ্ধ
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়ায় টানা ২৬ বছর চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবানের আয়োজন করেছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। এবছর তিনি নেই। কিন’ এরপরও তাঁর প্রবর্তন করা এ মেজবানের আয়োজন গুটিয়ে যায়নি। গোপালগঞ্জের মানুষের জন্য ব্যতিক্রমধর্মী এ মেজবানির আয়োজনের এবার হাল ধরেছেন প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরীর দুই ছেলে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও বোরহানুল হাসান চৌধুরী সালেহীন।
আজ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে টুুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু কলেজ মাঠ ও বালাগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে গত বছরের মতো এবারও ৪০ হাজার মানুষের জন্য মেজবানের আয়োজন করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩০ হাজার হলো মুসলিম ধর্মাবলম্বী ও ১০ হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী।
আওয়ামী লীগের ঢাকা বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের নেতৃত্বে নগরী থেকে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের প্রায় চার শতাধিক নেতাকর্মী সড়কপথে গতরাতে টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছেন। প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছোট ছেলে বোরহানুল হাসান চৌধুরী সালেহীনও সোমবার টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে পৃষ্ঠার ১ম কলাম মেজবানের তদারকি করছেন।

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সুপ্রভাতকে বলেন, ‘আমার বাবা এ আয়োজন প্রবর্তন করে গেছেন। নগর আওয়ামী লীগের সহযোগিতায় আমরা এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখছি।’

জানা গেছে, মেজবানের জন্য ২০টি গরু ও ৩ হাজার মুরগি কেনা হয়েছে। মুসলিমদের জন্য গরু এবং সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য মুরগির মাংসের আয়োজন করা হয়েছে। আজ সকাল ১১টা থেকে মেজবান শুরু হবে। খাবার শেষ না হওয়া পর্যন্ত চলবে আয়োজন।

মেজবানের সমন্বয়নের দায়িত্বে থাকা প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরীর একান্ত সচিব ওসমান গণি সুপ্রভাতকে জানিয়েছেন, ৪০ হাজার মানুষের এই আয়োজনের পেছনে ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা ব্যয় হবে।
জানা গেছে, বছরে কেবল একবারই গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী এ মেজবানের স্বাদ নিতে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন বৃদ্ধ আবাল থেকে শুরু করে হাজার হাজার নারী-পুরুষ। বঙ্গবন্ধু কলেজ মাঠ ও বালাগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ঢল নামে মানুষের।
দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরী টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে নিজেই এই মেজবানের তদারকি করতেন। অতিথিদের নিজেই আপ্যায়ন করতেন। নিজ হাতে অতিথিদের পাতে পাতে মেজবানের মাংস তুলে দিতেন তিনি।
উল্লেখ্য, গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন টানা ১৭ বছর চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব পালন করা এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী।