চবি’র নতুন অনুষদ

আগের কমিটির পরিবর্তে ১৫ সদস্যের নতুন কমিটি

চবি সংবাদদাতা গ্ধ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ ভেঙে নতুন অনুষদ গঠন বিষয়ে গঠিত আগের কমিটি পরিবর্তন করে নতুন করে কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
এর আগে গত ৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক আদেশে ভাষাভিত্তিক বিভাগসমূহ নিয়ে একটি আলাদা অনুষদ খোলার বিষয়ে সুপারিশ প্রদানের জন্য ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করার কথা বলা হয়। ওই কমিটিতে রাখা হয়নি কলা অনুষদ ডিন ও সংশ্লিষ্ট বিভাগের কোনো শিক্ষককে।
কমিটির সদস্যদের কাছে পাঠানো নতুন চিঠি সূত্রে জানা যায়, আগের পাঁচ সদস্যের কমিটি পরিবর্তন করে ঁ

‘ভাষা ও সংস্কৃতি’ নামে নতুন অনুষদ গঠনের সম্ভাব্যতা যাচাই করতে বিশ্ববিদ্যালয় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারকে প্রধান করে ১৫ সদস্যের আরেকটি নতুন কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। নতুন এ কমিটিতে রাখা হয়েছে সকল অনুষদের ডিন, বাংলা, ইংরেজি ও সংগীত বিভাগের সভাপতি এবং আইআরের পরিচালককে।
আগের গঠিত কমিটির সদস্যদের কাছে পাঠানো চিঠিতে আরবি, ইসলামিক স্টাডিজ, আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট (আইএমএল), ফারসি ভাষা ও সাহিত্য, পালি এবং সংস্কৃত বিভাগ নিয়ে নতুন ভাষাভিত্তিক অনুষদ গঠনের কথা বলা হয়েছিল। গত সোমবার তা সংশোধন করে ফরাসি, জার্মান, জাপানিজ, চাইনিজ, স্প্যানিশ ও কোরিয়ান ভাষার সমন্বয়ে নতুন অনুষদ প্রতিষ্ঠার সম্ভাব্যতা যাচাই করে রিপোর্ট পেশ করতে কমিটিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নতুন কমিটির সদস্য সচিব ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নূর আহমদ বলেন, ‘ভাষা ও সংস্কৃতি’ নামে একটি অনুষদ গঠনের সম্ভাব্যতা যাচাই করতে উপাচার্য ১৫ সদস্য বিশিষ্ট আরেকটি নতুন কমিটি গঠন করেছেন। কমিটিকে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’
উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ ভেঙে নতুন অনুষদ গঠনের উদ্যোগ, জানে না সংশ্লিষ্ট বিভাগসমূহ- এ শিরোনামে গত ৮ ফেব্রুয়ারি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ। এটি প্রকাশের তিনদিন পর ১১ ফেব্রুয়ারি কমিটি পরিবর্তন করে নতুন আরেকটি কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।