পতেঙ্গায় মৎস্য দপ্তরের সভায় প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

আইন মানুন, সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদ রক্ষা করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক

সামুদ্রিক মৎস্য অধ্যাদেশ ১৯৮৩ ও সংশ্লিষ্ট বিধিমালা অনুসরণে সামুদ্রিক মৎস্য বিষয়ক উদ্ধুদ্ধকরণ ও মতবিনিময় সভা পতেঙ্গা মেরিন ফিশারিজ সার্ভেল্যান্স চেকপোস্ট প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল সোমবার সকাল ১০টায় সামুদ্রিক মৎস্য দপ্তর চট্টগ্রামের উদ্যোগে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ আরিফ আজাদের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র এমপি। এসময় তিনি সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ রক্ষায় সামুদ্রিক মৎস্যআইন মেনে ও দেশ প্রেমে উদ্ধুদ্ধ হয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে দায়িত্ব পালন করতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানান।
সামুদ্রিক মৎস্য দপ্তরের পরিচালক ড. এ কে এম আমিনুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, মেরিন ফিশারিজ একাডেমির প্রিন্সিপাল ক্যাপ্টেন মাসুক হাসান আহমেদ, এফআইকিউসির উপ-পরিচালক প্রভাতী দেব, মৎস্য বিভাগীয় উপ-পরিচালক বজলুর রশিদ এবং জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মোমিনুল হক।
সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ মেরিন ফিশারিজ অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব মো. মশিউর রহমান, সদস্য মোহাম্মদ আলী, হোয়াইট ফিশ ট্রলারস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব মো. তাজ উদ্দিন তাজু, সভাপতি মো. জানে আলম, নৌ-বাণিজ্য অধিদপ্তরের সার্ভেয়ার ক্যাপ্টেন জালাল আহমেদ, পুলিশের সহকারী কমিশনার কামরুল হাসান ও এএসপি আকলিমা আক্তার, বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর প্রতিনিধি কমান্ডার সাহেদ, বাংলাদেশ কোস্টগার্ড জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন ওয়াসিম, বিএফডিসির জেনারেল ম্যানেজার কমান্ডার মনির উদ্দিন, র্যাব প্রতিনিধি এএসপি খায়রুল ইসলাম, বিজিবির দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের পরিচালক গোলাম মঞ্জুর সিদ্দিকি।
সভা শেষে মন্ত্রীর নির্দেশে সামুদ্রিক মৎস্য দপ্তর চট্টগ্রাম কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে জব্দকৃত প্রায় ৫০ লাখ টাকার ৪ হাজার কেজি অবৈধ জাল আগুনে পুড়ে ফেলা হয়। এছাড়া মন্ত্রী সমুদ্রে মৎস্য আহরণ কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন।