আধিপত্য বিস্তারে খুনের ঘটনা

অস্ত্রধারীদের গুলিবর্ষণ, এলাকায় আতঙ্ক

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া

চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের চিংড়ি জোনে দুই ডাকাত দলের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের জেরে নুরুল আমিন নামের এক ডাকাত খুনের ঘটনায় এলাকাজুড়ে ভয়ানক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। হত্যকাণ্ডের এ ঘটনায় চকরিয়া থানায় দায়ের করা মামলায় আসামি হওয়ার কারণে অভিযুক্তরা প্রায় প্রতিদিনই ঘটনাস’ল ও আশপাশ এলাকায় অস্ত্রের মহড়া দিচ্ছে। এ অবস’ায় স’ানীয় জনগণের পাশাপাশি এলাকার জনপ্রতিনিধিরাও অনেকটা অসহায় হয়ে পড়েছেন।
স’ানীয় প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন মুঠোফোনে জানিয়েছেন, নুরুল আমিন হত্যা মামলায় আসামি হওয়ার জেরে সর্বশেষ গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নিহত নুরুল আমিনের বসতবাড়ি ও ইউনিয়নের সওদাগরঘোনা থেকে চারা বটতলাসহ আশপাশ এলাকায় কমপক্ষে অর্ধ শতাধিক রাউন্ড পাঁকা গুলিবর্ষণ করেছে মামলার অভিযুক্ত আসামিরা।
স’ানীয় লোকজন অভিযোগ করেছেন, গুলিবর্ষণের ঘটনায় প্রকাশ্যে নেতৃত্ব দেন নুরুল আমিন হত্যা মামলার ১ নম্বর আসামি নাছির উদ্দিন ও ৩ নম্বর আসামি আবদুল জলিল। গুলিবর্ষণকালে এলাকার লোকজনের মাঝে চরম আতঙ্ক ও ভীতি ছড়িয়ে পড়ে। এসময় প্রাণের ভয়ে এলাকার লোকজন বিভিন্নভাবে লুকিয়ে আশ্রয় নেয়।
এদিকে চিরিঙ্গা ইউনিয়নের সওদাগরঘোনা এলাকায় ব্যাপক গোলাগুলির ঘটনা শুনে তাৎক্ষণিক চকরিয়া থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস’লে পৌঁেছছেন। অস্ত্রধারীরা পুলিশের উপসি’তি টের পেয়ে ঘটনাস’লের অদূরে চারা বটতল অতিক্রম করে চিংড়িজোনের দিকে পালিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
স’ানীয় লোকজনের দাবি করছেন, চিংড়ি জোনে আধিপত্য বিস্তারের জেরে নুরুল আমিনকে হত্যার পর থেকে মামলার অভিযুক্ত আসামিরা দিনের বেলায় পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে চিংড়ি জোনে আত্মগোপনে থাকে। তবে সন্ধ্যার পর পর অভিযুক্ত অস্ত্রধারীরা প্রকাশ্যে এলাকায় ফিরে আসে। তারপর শুরু হয় প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া।
এলাকার লোকজন জানিয়েছেন, একাধিক মামলার আসামি নুরুল আমিন প্রতিপক্ষের হাতে খুনের ঘটনায় চকরিয়া থানায় দায়ের করা মামলায় আসামি হওয়ার কারণে অভিযুক্তরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এরই জের ধরে তারা প্রতিদিনই এলাকায় প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিচ্ছে। সর্বশেষ সোমবার রাতে তারা নিহতের বসতবাড়ি ও আশপাশ এলাকায় অস্ত্রের মহড়া দিয়ে ব্যাপক গুলিবর্ষণ শুরু করে। এ কারণে এলাকার লোকজনের মাঝে ভয়ানক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন স’ানীয় জনপ্রতিনিধিরা।