জিয়াউল হক মাইজভা-ারীর (ক.) ওরসে বক্তারা

অসাম্প্রদায়িকতা শানিত্ম প্রতিষ্ঠার একমাত্র পথ

বিজ্ঞপ্তি

মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ, নির্যাতিত মানবতার পরিত্রাণ এবং বিশ্ববাসীর শানিত্ম সমৃদ্ধি কামনায় আখেরি মুনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে মাইজভা-ার শরিফের অন্যতম সাধক বিশ্বঅলি শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারী (ক.) এর ৩০তম ওরস শরিফ।
গতকাল বৃহস্পতিবার ওরস শরিফের প্রধান দিবসে আয়োজিত মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন মাইজভা-ার শরিফ গাউসিয়া হক মন্জিলের সাজ্জাদানশিন রাহবারে আলম সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান (মজিআ.)। বাংলাদেশের দূর দূরানত্ম থেকে আগত অসংখ্য ভক্ত জনতার জিকির, জেয়ারত, দরূদ শরিফ পাঠ, সেমা মাহফিল ও অশ্রম্নসিক্ত ফরিয়াদে শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারীর (ক.) রওজা প্রাঙ্গণে দেখা যায় বিভিন্ন ধরনের আধ্যাত্মিক আবহ।
এছাড়া মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ আমেরিকারসহ বিভিন্ন দেশেও বিশ্বঅলি শাহানশাহ্ সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারী (ক.) বার্ষিক ওরস শরিফ বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালিত হচ্ছে। মাইজভা-ার শরিফ গাউসিয়া হক মঞ্জিল, শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারী (ক.) ট্রাস্ট এবং মাইজভা-ারী গাউসিয়া হক কমিটি বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় পর্ষদ ও চট্টগ্রাম মহানগরসহ বিভিন্ন জেলা-উপজেলা শাখার উদ্যোগে ওরস উপলড়্গে নানা কর্মসূচি পালিত হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিল শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারী (ক.) ট্রাস্টের নিয়ন্ত্রাণাধীন শিড়্গাপ্রতিষ্ঠান মাদ্রাসা এতিমখানার শিড়্গার্থীদের অংশগ্রহণে র্যালি, ‘তাসাওউফের আলোকে সামাজিক ন্যায় বিচার’ শীর্ষক সেমিনার, খতনা-কর্ণছেদন ও চিকিৎসা ক্যাম্প, বৃড়্গরোপণ, দুস’ মহিলাদের সেলাই মেশিন বিতরণ ফটিকছড়ির সকল রেজিস্টার্ড এতিমখানার শিড়্গার্থীদের মাঝে খাবার বিতরণ, দেশের বিভিন্ন এলাকায় অবসি’ত পিছিয়ে পড়া শিড়্গা প্রতিষ্ঠানসমূহকে ‘সবার জন্য শিড়্গা’ প্রকল্পের আওতায় ৩৬টি প্রতিষ্ঠানে চেক প্রদান অনুষ্ঠান আয়োজনসহ নানা কর্মসূচি পালিত হয় ওরস উপলড়্গে।
গতকাল রাতে মাইজভা-ার শরিফ গাউসিয়া হক মনজিলে আয়োজিত মিলাদ মাহফিলে সভাপতির বক্তব্যে হযরত সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভা-ারী বলেন, বর্তমান বিশ্বে ইসলাম ধর্মের নামে বিভিন্ন মত ও পথের ব্যাপক প্রচার ও প্রসার লাভ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় জনমানুষের মধ্যে বিভ্রানিত্ম, ধর্মীয় সংঘাত, অনৈক্য, কূপম-ুকতা ও সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়ানো হচ্ছে একই মাত্রায়। এ পরিসি’তিতে মানুষ দিশাহারা। তাই হযরত শাহ্্সুফি সৈয়দ দেলাওর হোসাইন মাইজভা-ারী (ক.) রচিত মহাগ্রন’ ‘বেলায়তে মোত্্লাকায়’ উলিস্নখিত পবিত্র কুরআনের প্রকৃত শিড়্গা বিশ্ব মানবতাবাদ তথা উন্মুক্ত প্রেমবাদ, বিচারসাম্য, তথা সামাজিক ন্যায়বিচার, রবুবিয়াত তথা বিশ্বের পালনকর্তার পালনবাদ ও অসাম্প্রদায়িকতা মানুষকে প্রকৃত ধর্মীয় চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে ইসলাম ধর্মের প্রকৃত শিড়্গা গ্রহণে যথার্থ ভূমিকা পালন করতে পারে।
এ পরিসি’তিতে কোন প্রকার বিভ্রানিত্মকর কথাবার্তায় প্রভাবিত না হয়ে মাইজভা-ারী ত্বরিকার মহান বুজর্গগণ তাঁদের ব্যক্তি জীবনে যে ইসলাম অনুসরণ করেছেন ও শিড়্গা দিয়েছেন, যে নীতি আদর্শ প্রচার ও বাসত্মবায়ন করেছেন, তাই আমাদের একমাত্র পাথেয়।
হযরত সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান (মজিআ.) আরো বলেন, মজলুম মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং অসহায় দুস’ মানুষের সেবা করার মাধ্যমে আলস্নাহর সান্নিধ্য ও সন’ষ্টি অর্জিত হতে পারে। তিনি বলেন মিয়ানমার, ফিলিসিত্মন, সিরিয়া, ইরাক, ইয়েমেনের দুর্দশাগ্রসত্ম মানুষের অসহায়ত্ব ঘুচাতে বিশ্ব নেতৃত্বকে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে হবে। জাতিসংঘ ও আইসি ও আরবলীগকে সর্বশক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে ভাগ্য বিড়ম্বিত মজলুম মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারী (ক.) ছিলেন মজলুম মানুষের ঠিকানা ও আশা ভরসার প্রতীক। তিনি শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভা-ারীর (ক.) প্রদর্শিত পথ অনুসরণ তথা ত্যাগী জীবন গঠনে সবাইকে এগিয়ে আসার তাগিদ দেন।
ওরস শরিফ নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হওয়ায় স’ানীয় থানা পুলিশ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানো হয়েছে।
মাহফিলে বক্তব্য দেন মাওলানা আহমদুল হক মাইজভা-ারী, হাফেজ আবুল কালাম, মাওলানা কাজী হাবিবুল হোসাইন, আবদুল হালিম আল কাদেরী প্রমুখ।
অন্যদের মধ্যে উপসি’ত ছিলেন কেন্দ্রীয় পর্ষদের সভাপতি রেজাউল আলী জসিম চৌধুরী, এস জেড এইচ এম ট্রাস্টের সচিব এ এন এম এ মোমিন ও অন্য সদস্যরা। অনুষ্ঠান সঞ্চলনায় ছিলেন মাওলানা তরিকুল ইসলাম।
সালাত-সালাম শেষে মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ, নির্যাতিত মানবতার পরিত্রাণ এবং বিশ্ববাসীর শানিত্ম-সমৃদ্ধি কামনায় আখেরি মুনাজাত পরিচালনা করেন সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভা-ারী।