অরবিসের উড়াল চক্ষু সেবা নগরে

নিজস্ব প্রতিবেদক
dr.rabiul-hossan-(1)

বাংলাদেশে দশম এবং চট্টগ্রামে ৪র্থ বারের মতো অরবিসের সহযোগিতায় উড়াল চক্ষু সেবার আয়োজন করছে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল। স্বাস’্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে ২০০৯ সালের পর অরবিস দশমবারের মতো চোখের চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণ ও রোগীদের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম আসে। চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালে ও চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে এ আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়।
চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের ইমরান সেমিনার হলে গতকাল সকাল ১০টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ম্যানেজিং ট্রাস্টি অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন অরবিসের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে এ তথ্য প্রকাশ করেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘বিশ্বের একমাত্র উড়াল ‘অরবিস আই হসপিটাল’ চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে আজ (শুক্রবার) দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে অরবিসের বিমান অবতরণের পর থেকে আগামী ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত চট্টগ্রামের সকল চোখের চিকিৎসক ও নার্সদের প্রশিক্ষণ দেবে। এ প্রশিক্ষণ চলাকালীন সময়ে
বিনামূল্যে ২২০ জন চোখের সমস্যা দেখাতে এবং ৮০ জন অপারেশনের সুযোগ পাবে।’
তিনি আরো বলেন, ‘অরবিস এবার আটটি বিভাগে ৩১৫ জন চক্ষু বিশেষজ্ঞ, নার্স ও বায়োমেডিক্যাল টেকনেশিয়ানকে প্রশিক্ষণ দেবে।’
সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে অরবিস ইন্টারন্যাশনালের বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর ডা. মুনীর আহমেদ বলেন, ‘গ্রাম্য ডাক্তারদের প্রশিক্ষণ দিতে পারলে আমরা চক্ষু চিকিৎসা সেবায় অধিকতর অগ্রণী ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবো। তাই আমরা অরবিসকে গ্রামে প্রশিক্ষণ সেবা দেয়ার জন্য প্রস্তাব করেছি।’
ডা. মুনীর আহমেদের কথার সূত্র ধরে অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন বলেন, ‘আমরা সঠিক প্রশিক্ষণ ও উন্নত চিকিৎসা উপকরণ নিশ্চিত করতে পারলে আমাদের দেশের অনেক বাচ্চাকে অন্ধত্বের হাত থেকে বাঁচাতে সক্ষম হবো। আমরা অরবিসের সহযোগিতায় প্রি-ম্যাচিউরড বাচ্চাদের চোখ পরীক্ষা করতে চাই। আশা করি, প্রতিবারের মতো তারা আমাদের সহযোগিতা করবেন।
অরবিস ইন্টারন্যাশনালের গ্লোবাল মেডিক্যাল ডিরেক্টর ডা. জনাথন লর্ড, ফ্লাইং আই হসপিটালের ডিরেক্টর জে বার্গিজ এ সংবাদ সম্মেলনে উপসি’ত ছিলেন।