অনুশৃঙ্গম

তাপস চক্রবর্তী

বনলতার কথা বলতে বলতে একদিন-
চুপকথারা হবে রাতের আঁধার
তারপর জাগবে ঠোঁটের বিলাপ।

ধরো করতোয়া নদী তুমি, আমি হলাম বনানী
আগুন পাখির গানটা-
গল্পটায় জাগে শুধু সোমেশ্বরী।

তবুও রাতভর বৃষ্টি-
বৃষ্টিভেজা মাটির ক্রন্দনে কতিপয় কদমরেণু
তারপর সকালের সোনালি আলো ছুঁয়ে আসে-
অনুশৃঙ্গম।

নিঃশব্দে বালুচরে
রুদ্র সাহাদাৎ
নিঃশব্দে বালুচরে বসে থাকি
উত্তাল সমুদ্রের ঢেউ দেখি ক্ষণে ক্ষণে।
এপারে সমুদ্র শহর কক্স সাহেবের বাজার
ওপারে সোনাদিয়া, ডানে নাজিরারটেক
শুঁটকির ঘ্রাণ যেনো ভেসে ভেসে আসে।
মেেহশখালী উঁকি দেয় ঝাউবনের
সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে….
সাদা গাঙচিল উড়ে উড়ে যায়
দূর বহুদূর ঝাঁকে ঝাঁকে।
কুহলিয়া ঘাটে মৈনাকপর্বত স্বাগত জানায়
দেশি-বিদেশি যতো পর্যটক আসে যায়।
নিঃশব্দে বালুচরে বসতে বসতে ভাবি
গোধূলির উপারে গোধূলির রঙ যদি পেতাম।