সন্দীপনার স্মরণসভায় বক্তারা

অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসেন খান ছিলেন জ্ঞানের বাতিঘর

লোককলা চর্চা কেন্দ্রের জীবন সদস্য মরহুম অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসেন খানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মৃতিচারণ সভা চর্চা কেন্দ্রের দোস্ত বিল্ডিংস্থ কার্যালয়ে ১৪ নভেম্বর বিকাল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে মরহুমের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে কর্মসূচির সূচনা করেন ভাষ্কর ডি.কে. দাশ মামুন।
চর্চা কেন্দ্রের উপদেষ্টা এম.এ সালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মৃতুব্যবার্ষিকী ও স্মৃতিচারণ সভায় প্রধান অতিথি ও প্রধান আলোচক ছিলেন অধ্যাপক প্রণব মিত্র চৌধুরী ও চিত্রশিল্পী অধ্যাপক জাহেদ আলী চৌধুরী।
বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার সাধন চন্দ্র বিশ্বাস, সজল চৌধুরী, বাবুল কান্তি দাশ, প্রণব রাজ বড়ুয়া, কানুরাম দে, বর্ষীয়ান কবিয়াল অশ্বিনী কুমার দাশ, সঞ্চয় দাশ, মোশারফ হোসেন খান রুনু, কাজল দত্ত, রতন কুমার রাহা, আবছার উদ্দিন অলি, মুসলিম আলী জনি, মোহাম্মদ ইসমাইল, আমিরুন নেছা জেরিন, আখেরুন নেছা দীনা, মো. দিদার হোসেন, মো. সোহেল হোসেন।
কাজলী আকতার ও নিগার খন্দকারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভার শুরুতে শোক সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী মুসলিম আলী জনি, কানু রাম দে, বৃষ্টি দাশ, জ্যোতি শর্মা, মৈত্রী আচার্য্য।
আলোচনায় বক্তারা বলেন অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসেন খান ছিলেন একজন দক্ষ প্রশাসক ও প্রতিভাবান সাহিত্যিক। শিক্ষকতার জীবনে তিনি সারাদেশে জ্ঞানের বাতিঘর হিসাবে শিক্ষা বিতরণ করেছেন। লোকশিল্প ও লোককলার নানা বিষয়ের উপর ছিলো তাঁর অগাধ দখল। আধুনিক সাহিত্যের ভাষা রীতি প্রয়োগে সকলেই যখন চলিত রীতির সাহিত্য রচনায় মগ্ন তখনও তিনি সাধু রীতির সাহিত্য চর্চায় আমরণ অনড় ছিলেন। বাক্যের যাদু আর মাধুর্য সৃষ্টিতে অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসেন খান এক বিরল প্রতিভা। স্বতন্ত্র সাহিত্য সৃষ্টির জন্য তিনি ছিলেন জনপ্রিয় একজন প্রবন্ধকার, লেখক।
অনুষ্ঠানের ২য় পর্বে অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসেন খানকে নিবেদন করে সংগীত, পাঠ ও কবিগানে আসরে অংশ গ্রহণ করেন কবিয়াল নুরুল হুদা, সন্তোষ কুমার দে, পংকজ কুমার চৌধুরী, কাজল দত্ত, তপন কুমার দাশ, ডা. শিউলী দে, প্রকৌশলী অনিত কুমার নাথ, কানুরাম দে, এমরান হোসেন মিঠু, মো. রাশেদ, উজ্জ্বল সিংহ, ডা. কাবেরী দাশ, দিদার হোসেন, আমিরুন নেছা জেরিন, বৃষ্টি দাশ, ডা. তপতী চক্রবর্তী, শান্তা পাল, বুবলী দাশ প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি